দেশ যে জায়গায় চলে গেছে তা হওয়ার কথা ছিলোনা: অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান

দেশ যে জায়গায় চলে গেছে তা হওয়ার কথা ছিলোনা:  অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ আয়োজিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির ভাষণে বলেছেন, যে দেশে ৯২% নাগরিক ধর্মীয় বিশ্বাসের পরিচয়ে পরিচিত হতে চাই তখন ভাবি বাংলাদেশ কোন পথে হাঁটছে। ৪৮ বছরের মাথায় দেশ যে জায়গায় চলে গেছে তা ত’ এদেশে হবার কথা ছিল না। যদি যায়, তবে বলতে হয় মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশের মৃত্যু ঘটে গেছে। প্রকৃত অথের্, রাষ্ট্র মানুষকে মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি। সন্ত্রাস, সাম্প্রদায়িকতা থেকে আজ বেরিয়ে আসার সময় হয়েছে।

পার্বত্য শান্তিচুক্তি সম্পাদনের ২৩ বছর পর তা বাস্তবায়িত না হয়ে নতুনভাবে সংশোধনের মাধ্যমে একে সামরিকীকরণের উদ্যোগে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, স্বাধীন রাষ্ট্রে নাগরিকদের সাথে খেলা চলছে। সংখ্যালঘুসহ পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে এগিয়ে আনার জন্যে রাষ্ট্রকেই এগিয়ে আসতে হবে। বৈষম্যবিরোধী আইন প্রর্ণয়নের নির্বাচনী অঙ্গীকার বাস্তবায়নের জন্যে তিনি জোর দাবী জানান।

হিউবার্ট গোমেজের সভাপতিত্বে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ‘সংখ্যালঘুর অধিকার: মানবাধিকার’ শীর্ষক আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল। এতে অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন ড. নিমচন্দ্র ভৌমিক, মেজর জেনারেল (অব:) বিজয় কুমার সরকার, নির্মল রোজারিও, ভিক্ষু সুনন্দপ্রিয়, মিলন কান্তি দত্ত। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ড. রোবায়েত ফেরদৌস। কবিতা আবৃত্তি করেন পদ্মাবতী দেবী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন এ্যাডভোকেট রাণা দাশগুপ্ত। তেজগাঁও সম্মিলিত গানের দল সঙ্গীত পরিবেশন করেন। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন প্রাণতোষ আচার্য শিবু।

ড. মিজানুর রহমান সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে পরিচালিত সন্ত্রাস বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে না পারলে আগামী দু’দশক পর রাষ্ট্র সংখ্যালঘুশূণ্য হয়ে পড়বে বলে আশংকা ব্যক্ত করেন। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, শিক্ষাব্যবস্থা আজ মানুষ তৈরী করতে পারছে না। তিনি জোর দিয়ে বলেন, সংখ্যালঘুদের অস্তিত্ব ছাড়া বাংলাদেশ টিকবে না।

রাষ্ট্র ও রাজনীতি পরিচালনায় প্রধানমন্ত্রীর ভূমিকার প্রতি দৃঢ় আস্থা ব্যক্ত করে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান বলেন, সংখ্যালঘুদের দেশত্যাগ বন্ধে তাকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে যাতে এদের অন্য দেশের নাগরিকত্ব নিতে না হয়।

বিশেষ অতিথির ভাষণে অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস বলেন, সংখ্যালঘু বিতারণ অব্যাহত আছে। রামনগর আরামনগর হয়ে যাচ্ছে। বহুত্ববাদী রাষ্ট্র নির্মাণে তরুণ সমাজকে এগিয়ে আসার জন্যে তিন আহ্বান জানান। মানবাধিকার রক্ষায় উগ্র ধর্মীয় সাম্প্রদায়িকতাবাদকে রুখে দাঁড়ানোর এখনই সময় বলে অধ্যাপক ফেরদৌস মন্তব্য করেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked with *

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক মন্তব্য