আজ পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের ৩১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী: পালিত হচ্ছে ভিন্ন আয়োজনে

আজ পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের ৩১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী: পালিত হচ্ছে ভিন্ন আয়োজনে

সতেজ চাকমাঃ পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ। ১৯৮৯ সালের ৪ মে রাঙ্গামাটি’র লংগদুতে নিরীহ পাহাড়ীদের উপর সেটলার বাঙালিদের দ্বারা সংঘটিত গণহত্যার নৃশংসতার প্রতিবাদে ঢাকার রাজপথে জেগে ওঠা পাহাড়ী ছাত্রদের মৌন মিছিল রূপ নেই এক দ্রোহী স্রোতের। সেই ¯স্রোত এখনো বহমান। পার্বত্য চট্টগ্রামের জুম্ ছাত্রদের এই সংগঠনটি এখনও তাঁর লড়াইয়ের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে নানাভাবে। শাসক গোষ্ঠীর চোখ রাঙানি উপেক্ষা করে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের লড়াই এখনো অব্যাহত। তবে বৈশ্বিক করোনা মহামারীর ছোবলে পুরো পাহাড় এখন নিস্তব্ধ। তাই অন্যভাবে এই দিবসটি পালন করতে হচ্ছে বলে আইপিনিউজকে জানিয়েছেন পিসিপি নেতৃবৃন্দ।

পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নিপন ত্রিপুরা জানান, বৈশ্বিক বাস্তবতাকে সামনে রেখে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ তাঁর লড়াইয়ের ৩১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীটিকে পালন করছে ভিন্ন এক রাজপথে। দ্রোহী আহ্বানকে নানাভাবে জুম্ম ছাত্র সমাজের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য বেছে নিয়েছে অনলাইন মাধ্যমকে। আমরা চেষ্টা করছি জনম দু:খী জুম্মদের আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকার প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে পিসিপি’র যে ঐতিহাসিক দায় সেটাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার।

পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ তার এই প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীটিকে সামনে রেখে নিজেদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে নানা সিরিজ প্রোগ্রামের আয়োজন করছে গত কয়েকদিন ধরে। পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজ “facebook.com/keokradongpcp” থেকে জুম্ম ছাত্রদের দ্রোহৗ ও প্রতিবাদী কবিতা, গান, অনলাইনে প্রতিবাদী গানের শো, বিভিন্ন আর্টিকেল প্রকাশনাসহ সংগঠনটির বহু বন্ধু প্রতীম ছাত্র সংগঠন, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, ছাত্র নেতা, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, বুদ্ধিজীবি সহ অনেকের ভিডিও বার্তায় শুভেচ্ছা প্রেরণ সংবলিত বিভিন্ন কার্যক্রম চোখে পড়েছে আইপিনিউজ এর এই প্রতিবেদকের। এছাড়া পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ তাঁর এই প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে একটি প্রোফাইল ফ্রেম বানিয়েছে যা শোভা পাচ্ছে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী এবং শুভাকাঙ্খীদের ফেসবুক প্রোফাইলের সাথে।

এছাড়া পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ তাঁর প্রতিষ্ঠার ৩১ বছর উপলক্ষ্যে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে। বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, পার্বত্য চট্টগ্রামের জুম্ম জনগণ আজ সংকটাপন্ন ও অনিশ্চিত বাস্তবতার মুখোমুখি। রাষ্ট্রীয় বঞ্চনা, নির্যাতন ও আগ্রাসন আজ শেষ সীমায় পৌঁছেছে, উন্নয়নের নামে জুম্মদের জাতিগতভাবে নির্মূলীকরণ এবং অমুসলিম অধ্যুষিত পার্বত্য চট্টগ্রামকে মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চলে পরিণত করার চূড়ান্ত বাস্তবায়ন চলছে। এমনিতর পরিস্থিতিতে জুম্ম ছাত্র ও তরুণ সমাজ বসে থাকতে পারে না।

এদিকে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি জুয়েল চাকমা জানান, পাহাড়ের জুম্ম জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রাধীকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামকে আরো তীব্রতর থেকে তীব্রতর করা ব্যতীত আমাদের কোনো বিকল্প পথ নেই। তাই জুম্ম ছাত্র ও যুবাদের কাছে আমাদের বিপ্লবী আহ্বানকে পৌঁছে দেওয়ার জন্য এই করোনা সংকটেও আমরা আমাদের লড়াইকে জারী রাখার চেষ্টা করেছি নানাভাবে।

জুম্ম জনগণের অধিকারের সনদ পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় তীব্র ক্ষোভ জানিয়ে আইপিনিউজকে এই ছাত্রনেতা আরো জানান, সরকার আমাদের সাথে যেহেতু প্রতারণা করছে সেহেতু জুম্ম ছাত্র সমাজও তাঁর যুগের যে ঐতিহাসিক দায়িত্ব সেটা পালনে পিছপা হবে না। বৃহত্তর আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে চুক্তি বাস্তবায়নে বাধ্য করা হবে বলেও হুশিয়ারী উচ্চারণ করেন তিনি। এছাড়া পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ তার নিজ সাংগঠনিক অবস্থান থেকে বিভিন্নভাবে এই করোনাকালে অসহায় জুম্মদের পাশে থাকার চেষ্টা করছে বলেও জানান এই ছাত্রনেতা।

এদিকে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের ৩১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রী, বাংলাদেশ আদিবাসী ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ, বাগাছাস সহ বিভিন্ন প্রগতিশীল ছাত্র ও যুব সংগঠন। এছাড়া শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও জাতিসংঘের এক্সপার্ট মেকানিজম অন দ্যা রাইটস অফ ইনডিজিনাস পিপলস (এমরিপ) কাউন্সিলের সদস্য বিনোতাময় ধামাই, সাবেক ছাত্রনেতা এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক বসুমিত্র চাকমা, গানের দল মাদল, প্লুং ব্যান্ড সহ পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের বহু শুভাকাঙ্খী ব্যক্তিত্ব এবং রাজনৈতিক ও ছাত্র সংগঠন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked with *

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক মন্তব্য