সেনাবাহিনী কর্তৃক বিলাইছড়িতে একজনকে নির্যাতনের পর পুলিশে সোপর্দ, চারজনকে হয়রানি

সেনাবাহিনী কর্তৃক বিলাইছড়িতে একজনকে নির্যাতনের পর পুলিশে সোপর্দ, চারজনকে হয়রানি

গত ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ দিবাগত রাত আনুমানিক ১:০০ টার দিকে রাঙ্গামাটি জেলাধীন বিলাইছড়ি উপজেলায় দীঘলছড়ি সেনা জোনের একদল সেনাসদস্য উপজেলার কেংড়াছড়ি ইউনিয়নের ইজাছড়ি গ্রামের জনসংহতি সমিতির গ্রাম কমিটির সভাপতি কমল চাকমাকে ঘুম থেকে জাগিয়ে ইজাছড়ি গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে আটক করে। আটকের পর সেনা সদস্যরা কমল চাকমাকে রাতে বিভিন্ন জায়গায় তাদের সাথে ঘুরতে বাধ্য করে। এরপর সেনাসদস্যরা কমল চাকমাকে দীঘলছড়ি সেনা জোনে নিয়ে গিয়ে সেখানে আটক করে রাখে। ক্যাম্পে আটকের সময় সেনা সদস্যরা অমানুষিকভাবে নির্যাতন করে। এতে কমল চাকমা কোমরে ও মেরুদন্ডে মারাত্মকভাবে আঘাত পেয়েছেন বলে জানা গেছে।
১২ ডিসেম্বর ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:০০ টার দিকে সেনাসদস্যরা কমল চাকমাকে বিলাইছড়ি থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করতে চাইলে মারাত্মক জখম অবস্থায় পুলিশ তাকে গ্রহণ করতে রাজি হয়নি। ফলে সেনাসদস্যরা এর পরপরই কমল চাকমাকে বিলাইছড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করাতে বাধ্য হয়। ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ সকাল আনুমানিক ৮:৩০ টার দিকে সেনাসদস্যরা কমল চাকমাকে থানায় নিয়ে গিয়ে পুলিশের নিকট সোপর্দ করা হয় এবং রাঙ্গামাটিতে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করার পর জেলে প্রেরণ করা হয়।
গত ১২ ডিসেম্বর ২০১৭ সকালে রাঙ্গামাটি জেলাধীন বিলাইছড়ি উপজেলার বিলাইছড়ি বাজার ও ফারুয়া এলাকা থেকে স্থানীয় সেনাসদস্যদের কর্তৃক পৃথকভাবে ৪ নিরীহ জুম্ম আটকের শিকার হন। তবে পরে হয়রানির পর তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়। জানা গেছে, ঐদিন সকাল ১০:০০ টার দিকে বিলাইছড়ি উপজেলা সদরের দীঘলছড়ি সেনা জোনের একদল সেনাসদস্য বিলাইছড়ি বাজার এলাকা থেকে (১) আলো রঞ্জন দেওয়ান (৩৫), পীং-মৃগাঙ্ক দেওয়ান, সাং-বাজার এলাকা ও (২) রামথার পাংখোয়া (৩৮), সাং-বিলাইছড়ি পাংখোয়া পাড়া-কে আটক করে। হয়রানিমূলকভাবে কয়েক ঘন্টা সেনা জোনে আটক রাখার পর তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়।
অপরদিকে সকাল ৮:৩০ টার দিকে বিলাইছড়ি উপজেলাধীন ফারুয়া উপজেলার ফারুয়া সেনা ক্যাম্পের একদল সেনাসদস্য পার্শ্ববর্তী এগোজ্যাছড়ি গ্রামের বাসিন্দা (৩) শুভলাল তঞ্চঙ্গ্যা (৪০), পীং-পূর্ণ তঞ্চঙ্গ্যা ও (৪) প্রিয়লাল তঞ্চঙ্গ্যা (৩৫), পীং-ঐ-কে নিজ বাড়ি থেকে আটক করে ক্যাম্পে নিয়ে যায়। ক্যাম্পে নিয়ে গিয়ে সেনা সদস্যরা ‘সন্ত্রাসীরা কোথায় থাকে? এখানে তাদের ‘বস’ কে?’ ইত্যাদি নানা প্রশ্ন জিজ্ঞেস ও হয়রানি করে দুপুর ১২:৩০ টার দিকে আটককৃতদের ছেড়ে দেয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked with *

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক মন্তব্য