হসপিটালে ভর্তি না নেওয়ায় আদিবাসী নারীর ড্রেনে সন্তান প্রসব

হসপিটালে ভর্তি না নেওয়ায় আদিবাসী নারীর ড্রেনে সন্তান প্রসব

এক আদিবাসী মহিলা গত শুক্রবার একটি হাসপাতালের সামনের ড্রেনে এক কন্যা সন্তান প্রসব করেছেন। অভিযুক্ত হসপিটাল কতৃপক্ষ আদিবাসী মহিলাকে হসপিটালে ভর্তি নিতে অস্বীকৃতি জানানোর পর এ ঘটনা ঘটে।

নারীর আত্মীয়দের মতে, ভারতে কোরাপুতের (ওড়িশা) সাহেদ লক্ষন নায়েক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল প্রয়োজনীয় মেডিকেলের কাগজপত্র না থাকায় এ মহিলাকে ভর্তি নিতে রাজী হয়নি। এটি এএনআই নিউজ এজেন্সি রিপোর্ট করেছে।

প্রায় এক ঘণ্টা ধরে অবহেলিত অবস্থায় থাকার পর কর্তৃপক্ষ দীনু মুদুলি এবং নবজাতক কে চিহ্নিত করে ভর্তি নেয়।
‘শিশুটি বিশেষ নব্য-প্রাত্যহিকরণ ইউনিটে স্থানান্তর করা হয় এবং মাকে সাধারণ ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। মা ও শিশু দুজনই এখন স্থিতিশীল বলে হাসপাতালের সুপারিনটেনডেন্ট সিরামম মহাপাত্র অ্যানি জানিয়েছেন।

দস্যুপুর ব্লকের জিনগুদা গ্রামের বাসিন্দা দীনু মুদুলি বৃহস্পতিবার তার মা ও বোনের সাথে জেলার সদর দফতরে হাসপাতালে আসেন।

শুক্রবার সকালে তিনি শ্রম ব্যথা অনুভব করে এবং গাইনোকোলজি ওয়ার্ডে যান, কিন্তু কর্মীরা তাকে ভর্তি করতে অস্বীকৃতি জানান।
‘প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছাড়া স্টাফরা আমার মেয়েকে ভর্তি নিতে অস্বীকার করেছে। এরপর আমার মেয়ে ড্রেনের মধ্যে সন্তান জন্ম দিয়েছে বলে তার মা ‘গৌরামী মুদুলি জানান।

কোরাপুতের প্রধান জেলা মেডিকেল অফিসার ললিতমোহন রাথ তাদের অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে মন্তব্য করেন।
এ ঘটনায় একটি তদন্ত চলছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked with *

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক মন্তব্য