ডিজিটাল নিরাপত্তা অাইনঃ সম্পাদক পরিষদের মানববন্ধন সোমবার

ডিজিটাল নিরাপত্তা অাইনঃ সম্পাদক পরিষদের মানববন্ধন সোমবার

ডিজিটাল নিরাপত্তা অাইন সংশোধনের দাবিতে অাগামী সোমবার (১৫ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সমনে মানববন্ধন করবে সম্পাদক পরিষদ। পরিষদের পক্ষ থেকে ৬ দফা দাবিতে এ কর্মসূচির ঘোষণা দেওয়া হয়।

শনিবার (১৩ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১২টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিঅাইডি লাউঞ্জে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই মানববন্ধনের ঘোষণা দিয়েছেন ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত।

কর্মসূচি ঘোষণার অাগে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘মুক্ত সংবাদমাধ্যম, বাকস্বাধীনতা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার পরিপন্থী কালাকানুন- ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টকে অাইনে পরিণত করায় অামরা যারপরনাই হতাশ, ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত। অামাদের উদ্বেগের বিষয়গুলো মন্ত্রীসভায় উপস্থাপন করার ব্যাপারে তিন জন মন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রীর গণমাধ্যম বিষয়ক উপদেষ্টা প্রকাশ্যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু এসবের কিছুই হলো না। অামরা মনে করি, সেই প্রতিশ্রুতির বরখেলাপ হয়েছে। তারপরও অাইনটি পাস হওয়ার পর তথ্যমন্ত্রীর অনুরোধে অামরা অামাদের মানববন্ধন কর্মসূচি স্থগিত রেখেছিলাম। কিন্তু অামরা অাবারও অামাদের মানবন্ধন কর্মসূচি ঘোষণা করছি।’

৬ দফা দাবিতে সম্পাদক পরিষদ জানিয়েছে- সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা ও বাক স্বাধীনতা সুরক্ষার লক্ষ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা অাইনের ৮, ২১, ২৫, ২৮, ২৯, ৩১, ৩২, ৪৩ ও ৫৩ ধারা অবশ্যই যথাযথভাবে সংশোধন করতে হবে। এসব সংশোধনী বর্তমান সংসদের শেষ অধিবেশনে অানতে হবে। পুলিশ বা অন্য কোনও সংস্থার মাধ্যমে কোনও সংবাদমাধ্যম-প্রতিষ্ঠানে তল্লাশি চালানোর ক্ষেত্রে তাদের শুধু নির্দিষ্ট বিষয়বস্তু অাটকে দেওয়ার অনুমতি দেওয়া যাবে, কিন্তু কোনও কম্পিউটার ব্যবস্থা বন্ধ করার অনুমতি দেওয়া যাবে না। তবে তারা শুধু তখনই প্রকাশের বিষয়বস্তু অাটকে দিতে পারবেন, যখন সংশ্লিষ্ট সংবাদপ্রতিষ্ঠানের সম্পাদকের সঙ্গে অালোচনা করে কেন ওই বিষয়বস্তু অাটকে দেওয়া উচিত, সে বিষয়ে যৌক্তিকতা প্রমাণ করতে পারবেন। কোনও সংবাদ প্রতিষ্ঠানের কোনও কম্পিউটার ব্যবস্থা অাটকে দেওয়া বা জব্দ করার ক্ষেত্রে অবশ্যই উচ্চ অদালতের অাগাম নির্দেশ নিতে হবে। সংবাদমাধ্যমের পেশাজীবীদের সাংবাদিকতার দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট অপরাধের ব্যাপারে প্রথমেই অাদালতে হাজির হওয়ার জন্য তাদের বিরুদ্ধে সমন জারি করতে হবে (যেমনটা বর্তমান অাইনে অাছে) এবং সংবাদমাধ্যমে কর্মরত পেশাজীবীদের কোনও অবস্থাতেই পরোয়ানা ছাড়া ও যথাযথ অাইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ ছাড়া অাটক বা গ্রেফতার করা যাবে না। সংবাদমাধ্যমের পেশাজীবীর দ্বারা সংঘটিত অপরাধের ক্ষেত্রে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের গ্রহণযোগ্যতা অাছে কিনা তার প্রাথমিক তদন্ত প্রেস কাউন্সিলের মাধ্যমে করা উচিত। এই লক্ষ্যে প্রেস কাউন্সিলকে যথাযথভাবে শক্তিশালী করা যেতে পারে। এই সরকারের পাস করা তথ্য অধিকার অাইনকে দ্ব্যর্থহীনভাবে ডিজিটাল নিরাপত্তা অাইনের ওপর প্রাধান্য দেওয়া উচিত। ওই অাইনে নাগরিক ও সংবাদমাধ্যমের জন্য যেসব স্বাধীনতা ও অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে, সেগুলোর সুরক্ষা অত্যাবশ্যক।

সংবাদ সম্মেলনে অারও উপস্থিত ছিলেন ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজুর রহমান, প্রথম অালোর সম্পাদক মতিউর রহমান, কালের কণ্ঠের সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, ঢাকা ট্রিবিউনের সম্পাদক জাফর সোবহান প্রমুখ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked with *

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক মন্তব্য