যে মানুষ মিজি আগে জুম্ম উনর মনে মনে- সতেজ চাকমা

যে মানুষ মিজি আগে জুম্ম উনর মনে মনে-  সতেজ চাকমা

(১)
এই কয়দিনে ফেসবুকের নিউসফিড স্ক্রল করতে করতে চোখে পড়ছে একটি মানুষের ছবি,তাঁর ছবি সম্বলিত পোষ্টার,তাঁকে নিয়ে ফেসবুক প্রেফাইলে পিকচার কিংবা ফ্রেমিং, ফানুস তৈরীর সাজসজ্জ্বা আরো কত কী! পাহাড় তথা বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় যেখানে এ মানুষটির দ্যুতি ছড়িয়ে পড়েছে,তাঁর ভাবনার কথা মানুষ জানতে পেরেছে এবং প্রজন্মের অনেকেই এখনো পাঠ করার চেষ্টা করছে তাঁর জীবন ও সংগ্রাম সেখানেই চলছে এই ১০ নভেম্বর উৎযাপনের প্রস্তুতি।এই উৎযাপন শোকের,এই উৎযাপন শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার। এ মানুষটি মহান নেতা মানবেন্দ্র নারায়ন লারমা। যিনি সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশকে একটি মানবিক ও সাম্যবাদী আদর্শের রাষ্ট্র হিসাবে প্রতিষ্ঠার প্রয়াসে সংসদে তুলে ধরেছিলেন তাঁর ভাবনার কথা।পাহাড়ের অধিকার বি ত জুম্ম জনগণ তো বটেই একই সাথে তিনি তুলে ধরেছিলেন দেশের অপরাপর অধিকার বি ত মাঝি-মাল্লা,তাঁতী,কামার,কুমোর,রিক্সাচালক, মেথর,পতিতা,বেদে থেকে শুরু করে খেটে-খাওয়া শ্রমজীবি মানুষের অভিশপ্ত জীবনের কথাগুলো, তাদের ব্যথাগুলো।কিন্তু লারমা’র এ কথা এ রাষ্ট্রব্যবস্থার তৎকালীন নেতৃত্ব রাখেনি। রাখলে হয়ত অন্যরকম বাংলাদেশ পেতাম আমরা সবাই। এমনকি উপেক্ষিত লারমা এই রাষ্ট্রকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়ে গেছেন পাহাড়ের একঝাঁক অধিকারকামী গেরিলার সাংঘিক উদ্ধোধনের মধ্য দিয়ে এবং বারুদের গন্ধ দিয়ে রাষ্ট্রকে বুঝাতে চেয়েছেন যে, যদি রাষ্ট্র তাঁর সন্তানদের সঠিকভাবে প্রতিপালন তথা বিকাশের সুযোগ না দেয় তবে তাঁরা জীবনের প্রয়োজনে গেরিলা গড়ন নিয়ে হলেও রাষ্ট্রের ভুল ভাঙিয়ে এই রাষ্ট্রকে কাছে পেতে চাই।কারণ,রাষ্ট্র ও জনগণ একে অপরের পরিপূরক।

(২)
১৯৭২ সালের ২৫ অক্টোবর রোজ বুধবার। সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশ কীভাবে আগামী দিনে পথ চলবে,কোন ব্যবস্থায় তাঁর মানচিত্রের প্রতিটি পৃষ্ঠকে সাজাবে তার কাঠামো নির্ধারণে যে সংবিধান রচিত হতে যাচ্ছে সেটির খসড়া’র উপর সামগ্রিক সাধারণ-আলোচনা চলছে তৎকালীন গণপরিষদে।পাহাড় থেকে নির্বাচিত সাংসদ লারমা বক্তব্য রাখছেন-”আজকে শীতাতপ-নিয়ন্ত্রিত কক্ষে বসে আপনারা বাংলাদেশের মেহনতি মানুষের কথা সমাজতন্ত্রের নামে,গণতন্ত্রের নামে বলে চলেছেন।আমি ক্ষুদ্র মানুষ,সংসদীয় অভিজ্ঞতা আমার সেরকম নাই।তবু আমার বিবেক বলছে,এই সংবিধানের কোথায় যেন গলদ রয়েছে।”

মেহনতি মানুষের প্রিয় নেতা লামরা’র বিবেক যে গলদের কথা সেই রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার গোড়ার দিকে বলেছিলেন সে গলদ যেন আজকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৪৮ বছরের কাছাকাছি সময়ে এসেও এড়াতে পারেনি বরঞ্জ তা আজ রাষ্ট্রের শিরায় শিরায়।
তিনি সেদিন সে গলদের কথা যেভাবে সহভাগীতা করেছিলেন তার চুম্বকাংশ ছিল এরকম-: ”মাননীয় স্পীকার সাহেব,আজকে যারা কল-কারখানার চাকা,রেলের চাকা ঘুরাচ্ছেন, যাঁদের রক্ত চুইয়ে আজকে আমাদের কাপড়,কাগজ,প্রতিটি জিনিস তৈরী হচ্ছে,সেই লক্ষ লক্ষ মেহনতি মানুষের কথা এখানে নাই।”

পতিতাদের নরক যন্ত্রনার কথা উল্লেখ করে তিনি সেদিন বলেছিলেন- ”এই সংবিধানে সেই মা-বোনদের জীবনের কোনো গ্যারান্টি দেয়া হয়নি। যদি এটা আদর্শ সংবিধান হতো, তাহলে আজকে যারা নিষিদ্ধ পল্লীতে নিজেদের দেহ বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছে,তাদের কথা লেখা হত,তাদেরকে এই নরক যন্ত্রণা থেকে মুক্ত করে আনার কথা থাকত।কিন্তু তাদের মনের অভিব্যক্তি প্রকাশের কথা,খেয়ে-পরে বেঁচে থাকার কথা সংবিধানে নাই।”

এই নাই বলে আজো আমরা এ রাষ্ট্রের সার্বভৌম ভূখন্ডের ভেতর অসংখ্য পতিতার দুর্বিসহ জীবন চোখে পড়ে, চোখে পড়ে দেশের অপরাপর অধিকার বি ত কৃষক,মাঝি-মাল্লা,তাঁতী,কামার,কুমোর,রিক্সাচালক, মেথর,পতিতা,বেদে থেকে শুরু করে খেটে-খাওয়া শ্রমজীবি তথা পাহাড়ের জুম্ম জনমানুষের অভিশপ্ত জীবনের তুলিতে আঁকা বাংলাদেশের মানচিত্রের প্রতিটি ভাঁজকে।

(৩)
আজ ১০ নভেম্বর ২০১৮, রোজ শনিবার। লারমা নেই।তবুও এখনো পাহাড়ের মানুষ দ্রোহ নিয়ে গুনগুনিয়ে গেয়ে যাই লারমাকে নিয়ে চাকমা ভাষায় লেখা কালায়ন দা’র সেই বিখ্যাত গান-

যে মানুজ মিজি আগে জুম্মউনর মনে মনে
সেই এক নাঙ বানা
সেই এক হদা বানা
নাঙ তার লারমা লারমা
বাংলায়:- যে মানুষ মিশে আছে জুম্ম জনমানুষের মনে মনে
কেবল সেই এক নাম
কেবল সেই এক কথা
নাম তাঁর লারমা লারমা।

’৮৩ সালের আজকের এই দিনে বেঈমান ঘাতকের বুলেট ছিনিয়ে নিয়েছে তাঁর জীবনকে। দেশী-বিদেশী চক্রান্তের দোসর দেবেন-পলাশ-গিরি-প্রকাশ এর নেতৃত্বে লারমা’র হাতে গড়ে তোলা পাহাড়ের জুম্মদের দুর্বিসহ জীবন বদলিয়ে ফেলার যে লড়াই চলছিল সে লড়াইকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টা চালানো হয়েছিল লারমা’র জীবন প্রদীপ নিভিয়ে ফেলার মধ্য দিয়ে।কিন্তু ঘাতকেরা জানেনা- মরণেই থামেনা জীবন।লারমা আধো পাহাড়ের পরতে পরতে দেদীপ্যমান ।

যার জন্যই আজকে ১০ নভেম্বর পাহাড়ে আসে শোকের বারতা নিয়ে।সবুজ পাহাড়ের সান্ধ্য নিরবতার বুক ছিড়ে পাহাড়ী মানুষ ফানুসের মাধ্যমে দ্রোহ-ক্ষোভের রক্তাভ আগুনের ফুলকির সারি আকাশে ওড়াই লারমার উদ্দেশ্যে আর শপথ নেয় নতুন ভোরের প্রত্যাশায়।এই ভোর লারমার স্বপ্নকে ছোঁয়ার।তাই এ ভোরের প্রত্যাশায় জেগে থাকা লারমার সৈনিকরা ১০ নভেম্বরে কেবল শোকের অশ্রু ঝরায় না,দ্রোহের শপথও নিয়ে থাকে।এ দ্রোহের ফুলকি ছড়িয়ে পড়ছে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে।যে দ্রোহ একটি মানবিক জীবনের, একটি প্রত্যাশিত স্বপ্নের।
মুক্তির এ দ্রোহ লারমা ছড়িয়ে যাচ্ছেন তাঁর আদর্শ ও রেখে যাওয়া একঝাঁক গেরিলা(ভাবার্থে) এবং বাংলাদেশের প্রগতিশীল মানুষের অন্তরে অন্তরে যারা এখনো স্বপ্ন দেখে যায় এই বাংলাদেশকে একটি মানবিক ও সাম্যের রাষ্ট্র হিসাবে প্রতিষ্ঠার।যারা এখনো স্বপ্ন বুনে যায় এদেশের সকল পেশার,ধর্মের,সম্প্রদায়ের মানুষ তাঁর নিজ নিজ শিল্প,সাহিত্য,সংস্কৃতি, ধ্যান,জ্ঞান ও ভাবনা নিয়ে বিকশিত হবে এবং প্রতিষ্ঠা পাবে সংবিধানের যে লিখিত চার মূলনীতি গণতন্ত্র,সমাজতন্ত্র,ধর্মনিরপেক্ষতা ও যার যার জাতীয়তাবাদী আদর্শে উদ্ধুদ্ধ মানুষের মানবিক বাংলাদেশ।

(৪)
লারমার রেখে যাওয়া প্রজন্মের উত্তরসূরী হিসাবে আমিও এক মানবিক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখি।যে স্বপ্ন নিয়েই ভালো লাগা থেকে এক আধটু লেখার চেষ্টা করি।জুমজার্নাল নামে একটি ব্লগে আমি আমার প্রোফাইলে যা লিখেছিলাম তার শেষাংশ দিয়েই শেষ করছি চলতি লেখা-
”স্বপ্ন দেখি গণতান্ত্রিক অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে সকল সম্প্রদায়ের মানুষ পারস্পরিক সম্মান, শ্রদ্ধাবোধ ও সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক নিয়ে বেঁচে থাকবে। বহুত্ববাদী এ রাষ্ট্রে চর্চা হবে বৈচিত্র্যপূর্ণ সকল সংস্কৃতি ।জুম-পাহাড়ের সকল সম্প্রদায়ের মানুষ দেশের বাঙালী মূল জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি তাদের স্বকীয় সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য নিয়ে বেঁচে থাকার সুযোগটি পাবে এবং গণতান্ত্রিক,অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের সংবিধানে ঠাঁই মিলবে পাহাড় ও সমতলের সকল ’আদিবাসী’ জনগোষ্ঠীর।এ লক্ষ নিয়েই স্বপ্নবাজ এ তরুন নিয়ত স্বপ্ন দেখে যাই জুম-পাহাড়কে নিয়ে, প্রিয় বাংলাদেশকে নিয়ে।”

প্রিয় নেতা লারমাও এই স্বপ্নটিই দেখেছিলেন নিশ্চয়।লারমার এ স্বপ্ন সার্থক হোক।
লাল সালাম লারমা।।

লেখক- সতেজ চাকমা।
আদিবাসী অধিকারকর্মী ও শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।।

1 comment

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked with *

1 Comment

  • শ ম একরামুল হক
    নভেম্বর ২৩, ২০১৮, ৭:০৮ পূর্বাহ্ণ

    লেখাটি ভালো লেগেছে। লেখককে ধন্যবাদ।

    REPLY

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক মন্তব্য