আদিবাসী নারী গণমাধ্যম কর্মীদের কথা

আদিবাসী নারী গণমাধ্যম কর্মীদের কথা

শ্যাম সাগর মানকিনঃ আদিবাসী নারীরা বরাবরই পুরুষের সাথে মাঠে ঘাটে কাজ করে অভ্যস্ত। বরং আদিবাসী কোন কোন সমাজে দেখা যায় পুরুষদের থেকে নারীরা বেশি কাজে লিপ্ত থাকে। বর্তমান সময়ে নারীরা আধুনিক চ্যালেঞ্জিং পেশায় যুক্ত হচ্ছেন। সে সব ক্ষেত্রগুলোতে নিজেদের দক্ষতা দিয়ে কাজ করে চলেছেন আদিবাসী নারীরা। এমনই একটা চ্যালেঞ্জিং পেশা গণমাধ্যম কর্মী হিসেবে আমাদের আদিবাসী নারীরা নিজেদের যোগ্যতার প্রমাণ দিয়ে চলেছেন। অনেকেই রিপোর্টিং, ডেস্ক এবং সংবাদ উপস্থাপনায় কাজ করে চলেছেন। তাদের মধ্য থেকে আমরা আজকে তিনজন নারী গণমাধ্যম কর্মীদের কাজ সম্পর্কে জানবো, জানবো তাদের এই পথচলার গল্প। আমরা এটিএন নিউজের স্পোর্টস রিপোর্টার জেনিয়া চিসিম, চ্যানেল ২৪ এসাইনমেন্ট ডেস্কের লুসিয়া চাকমা এবং চ্যানেল ২৪ এর সংবাদ পাঠিকা ও বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের অনুষ্ঠান উপস্থাপক সোহেলী চাকমার কথা আপনাদের শোনাবো।

জেনিয়া চিসিম
ক্রীড়া প্রতিবেদক, এটিএন নিউজ।


জেনিয়া চিসিম এটিএন নিউজে ২০১৭র মার্চে ক্রীড়া প্রতিবেদক হিসেবে যোগদান করেন। প্রায় ২ বছর হতে চলেছে তার সাংবাদিকতা জীবনের। বলা যায় পড়াশুনার বিষয় হিসেবে গনযোগাযোগ ও সাংবাদিকতার শিক্ষার্থী হওয়ার ফলেই পেশা হিসেবে সাংবাদিকতাকে বেছে নেয়া। এই বিষয়ে পড়তে এসে নিজের ব্যাক্তিগত ধরণের সাথে মিল পেয়েছেন বলে অন্যরকম এক বন্ধন ও ভালোবাসা জন্ম নেয় সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের প্রতি। দুইয়ে দুইয়ে মিলে চার হয়ে যাওয়া যেনোবা। তাইতো জেনিয়া চিসিমের কাছে সাংবাদিকতা কেবল একটা পেশা নয়, বরং অনেকটাই প্রচন্ড আবেগের ব্যাপার তার কাছে।

ক্রীড়া প্রতিবেদক হিসেবে কাজ করার ব্যাপারে জেনিয়া চিসিমের ভাষ্য হলো, ছোটবেলা থেকেই খেলাধুলার প্রতি আগ্রহ ছিলো অনেক। নিজেও ক্রিকেট, ফুটবলসহ সব ধরণের খেলাধুলা করেছি। তাছাড়া আন্তর্জাতিক খেলাধুলা খবরাদি রাখতাম সবসময়। মোটকথাআমি খেলাধুলা ভালোবাসি।সে কারনেই ক্রীড়া সাংবাদিকতাকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছি। জেনিয়া চিসিম সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে নিজেকে ক্রীড়া প্রতিবেদকের থেকেও বরং একজন খেলোয়ার হিসেবে ভাবতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। সে কারনে কাজের ক্ষেত্রে খুব একটা বেগ পেতে হয়না বলেই তার বিশ্বাস। তবে আদিবাসী হিসেবে ভাষাগত সমস্যার সন্মুখীন হয়েছেন শুরুতে। কিন্তু কাজের প্রতি আন্তরিকতা থেকে সেই সমস্যা কাটিয়ে উঠেছেন, প্রতিনিয়ত চর্চার ভেতর দিয়ে।

তার পথ চলায় পরিবারের সবসময় সমর্থন ও উৎসাহ ছিলো। ছোটবেলা থেকে যেটাই করতে চেয়েছেন তাই করতে উৎসাহ যুগিয়ে গেছেন পরিবারের সকলে মিলে। ছোটবেলা অনেক দুরন্তপানায় কাটিয়েছেন। চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করেন জেনিয়া চিসিম। তাইতো ক্রীড়া প্রতিবেদকের মতন একটা চ্যালেঞ্জিং পেশার প্রতি এতোটা টান অনুভব করেন তিনি। সাংবাদিকতায় নিজেকে মেলে ধরতে চান এই নবীন সাংবাদিক। বাংলাদেশের অন্যতম খ্যতিমান সাংবাদিক মুন্নি সাহা সাংবাদিকতায় তার কাছে আদর্শ। সাংবাদিকতা করতে এসে সেই মুন্নি সাহার হাত ধরে এগিয়ে যেতে পারাকে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন তিনি।

আদিবাসী মান্দি জাতিগোষ্ঠির জেনিয়া চিসিমের জন্মস্থান ময়মনসিংহের ধোবাউড়া গ্রামে। প্রাথমিক শিক্ষা সম্পন্ন করেন গ্রামের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এরপর ২০০৮ সালে ধাইড়পাড়া উচ্চ মাধ্যমিক থেকে এসএসসি, ২০১০ সালে ইউনিভার্সিটি ওমেন্স ফেডারেশন কলেজ থেকে এইচএসসি এবং ২০১৫-২০১৬ তে স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পাশ করেন তিনি।

লুসিয়া চাকমা
অ্যাসাইনমেন্ট ডেস্ক, চ্যানেল ২৪।


সারাদিন কোন রিপোর্টার কোথায়, কখন, কেন ও কিভাবে যাবে এবং কোন সংবাদ কেমন গুরুত্ব পাবে বা কোন সংবাদটা কোথায় আছে তা দেখভাল করা অ্যাসাইনমেন্টডেস্কের কাজ। বলা যায় একটা সংবাদ মাধ্যমের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ এই ডেস্ক। এ কাজেই যুক্ত রাঙামাটির চাকমা আদিবাসী মানুষ লুসিয়া চাকমা। ২০১৪ সাল থেকে তিনি এই দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন চ্যানেল ২৪ এ।
নিজের কাজটুকু বেশ উপভোগ করেন লুসিয়া চাকমা। কাজটা সম্পর্কে জানেন বলেই হয়তো কাজটা উপভোগ করা যায় বলে তিনি মনে করেন। তাছাড়া দীর্ঘ সময় একই জায়গায় কাজ করার ফলে ভালো লাগাটা কাজ করে বেশি। কাজ করতে এসে আদিবাসী নারী হিসেবে খুব বেশি প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়নি তার। কাজ নিয়ে আপাতত কোন ভবিষ্যত ভাবনা নেই লুসিয়া চাকমার। তবে নিজের জাতির জন্য ভালো হয় এমন কিছু করবার ইচ্ছে রয়েছে ষোলআনা।
ছোটবেলা থেকেই তার মাকে তিনি দেখেছেন ঘরে-বাইরে সব কাজে তার বাবার সাথে অংশ নিতে। সংসারের যাবতীয় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তে মায়ের ভূমিকা দেখে দেখে বড় হয়েছেন লুসিয়া চাকমা। নিজের ব্যাক্তিগত জীবনে মায়ের প্রভাব তাই সুদূরপ্রসারী হয়ে ওঠেছে। ফলে লুসিয়া চাকমার জীবনে অনুপ্রেরণার বড় একটা জায়গা জুড়ে রয়েছেন তার মা । লুসিয়া মনে করেন পড়াশুনা করলেই কেউ বড় মানুষ হয়ে যায়না, সে জন্যই সবসময় মানুষ হবার তাড়না নিজের ভেতর পুষে রাখেন।
বাবা-মার একমাত্র সন্তান লুসিয়া চাকমা রাঙামাটি সদরের কলেজ গেইট এলাকায় জন্মগ্রহন করেন। ২০০৩ সালে রাঙামাটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেন। ২০০৫ সালে রাঙামাটি সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করার পর ভর্তি হন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে। সেখান থেকেই স্নাতক ও ২০১২ সালে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন তিনি।

সোহেলী চাকমা ত্রিপুরা
সংবাদ পাঠিকা, চ্যানেল ২৪।


সবাইকে সংবাদ জানানোর কাজ করেন একজন সংবাদ পাঠিকা। তাদের কন্ঠ ও উপস্থাপনার ভঙ্গিতে বিভিন্ন বার্তা মানুষের কাছে পৌঁছে যায়। সোহেলী চাকমা মানুষের কাছে সংবাদ উপস্থাপন করার কাজ করেন চ্যানেল ২৪ এ ২০১৭ সাল থেকে। তবে তার এই যাত্রা আরো আগে শুরু হয়েছিলো। ২০১৪ সাল থেকে বাংলাদেশ টেলিভিশনে চট্টগ্রাম কেন্দ্রের অনুষ্ঠান উপস্থাপনার মাধ্যমে তার এই অগ্রযাত্রা শুরু হয়েছিলো। এখনো তিনি বিটিভিতে কাজ করে চলেছেন।এরপর ২০১৫-১৬ সালে এটিএন বাংলার শৈল-সমতল অনুষ্ঠানও উপস্থাপন করেন।
সোহেলী চাকমা সংবাদ পরিবেশনার কাজ বা অনুষ্ঠান উপস্থাপনার কাজকে ভালোবাসার কাজে পরিণত করেছেন। তার মতে পেশা ও আবেগের, ভালোবাসার মিশ্রন ঘটেছে এই উপস্থাপনার কাজে। তার ইচ্ছে আর যাই হোক এই উপস্থাপনার কাজ তিনি ছাড়বেননা কখনোই।
সোহেলী চাকমার জীবনে রয়েছে অন্য আরেক গল্প যেটা তার কাছে আনন্দের আবার অনেকের কাছেই সেটা ঈর্ষার। গল্পটা তার দ্বৈত সংস্কৃতির উত্তরাধিকারী হবার। মা ত্রিপুরা ও বাবা চাকমা হওয়ার সুবাদে এই দুই জাতিগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক আবহে বেড়ে ঊঠেছেন তিনি। দুটো সংস্কৃতিকেই ভালোবাসেন, নিজের করে নিয়েছেন।সোহেলী চাকমা কিংবা ত্রিপুরা দুটো নামেই তিনি স্বাচ্ছন্দবোধ করেন তাই। তবে মা যেহেতু বেশি সময় দিতো তাই ত্রিপুরা সংস্কৃতি ভাষা রপ্ত হয়েছে বেশি। ত্রিপুরা ছাত্র সংগঠনের কাজেও লিপ্ত ছিলেন পুরোদমে। কিন্তু এই বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতির সাথে আনন্দে বেড়ে উঠার সাথে সাথে সয়তে হয়েছে লোকের নানান অবহেলা। চাকমা ছেলে-মেয়েরা তাকে ত্রিপুরা মেয়ে হিসেবে আলাদা করে দেখতো, আবার ত্রিপুরারা চাকমা বলে কিছুটা এড়িয়ে চলতো। সংগঠন করার পরও অনেকের কাছে নানান কথা শুনতে হয়েছে। কিন্তু এই সব কে কখনোই খুব আমলে নেননি তিনি। দৃপ্ত পায়ে এগিয়ে গেছেন এই দুই সংস্কৃতিকে সন্মান করে ও ভালোবেসে। কিন্তু তিনি এও মনে করেন যারা এমন দ্বৈত সংস্কৃতির বাহক সমাজের উচিৎ তাদের আরো বেশি উৎসাহ দেয়া, যাতে হীনমন্যতায় ভুগতে না হয়, জীবন চলার পথ থমকে না যায়।

বাবার সরকারী চাকুরীর ফলে সোহেলী চাকমার জন্ম হয়েছে গাজীপুরে, কিন্তু বেড়ে ওঠা খাগড়াছড়িতে। পড়াশুনায় বরাবরই ভাল সোহেলী চাকমার শিক্ষা জীবনের শুরু খাগড়াছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে। এরপর এসএসসি পাশ করেন খাগড়াছড়ি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও এইচএসসি পাশ করেন খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজ থেকে। বর্তমানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাচ্যভাষা সংস্কৃত নিয়ে স্নাতকোত্তর করছেন তিনি। ভবিষ্যতে একটা অনাথ আশ্রম গড়ার স্বপ্ন দেখেন তিনি, যেখানে মাতৃ-পিতৃহীন শিশুরা বেড়ে উঠতে পারবে সকল সম্ভাবনা নিয়ে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked with *

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক মন্তব্য